কিভাবে ওয়ার্ড প্রেসে আপনি ওয়েবসাইট বানাবেন ? বিস্তারিত এক পোস্টে ।

কিভাবে ওয়ার্ড প্রেসে আপনি ওয়েবসাইট বানাবেন ? বিস্তারিত এক পোস্টে ।

আপনাকে স্বাগতম সিলেট স্টোর অনলাইন শপে। এই পোস্টের মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন এবং বুঝতে পারবেন কিভাবে একটি ওয়ার্ড প্রেস সাইট বানাবেন। একদম শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আপনি জানতে পারবেন। তাই মনোযোগ সহকারে পড়বেন আশা করি।

ওয়ার্ড প্রেস প্রযুক্তি দুনিয়ার সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত সিস্টেম। এটি কন্টেন্ট মেনেজমেন্ট সিস্টেম নামে পরিচিত। কেননা এতে অনেক কিছু আগে থেকেই রেডি করা থাকে। এর এতো জনপ্রিয়তা যে পৃথিবীতে যত ওয়েবসাইট আছে, ৮০ ভাগ  ওয়ার্ড প্রেস ফিয়ে তৈরি। এটি সহজে মনের মতো সাজানো যায়। আপনি যদি বেশি কিছু নাও জানেন শুধু কম্পিউটার চালাতে পারেন তাহলে ওয়ার্ড প্রেস দিয়ে আপনি সহজে ওয়েব সাইট বানিয়ে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

চলুন মুল আলোচনায় যাই। আপনার যদি অর্থ খরচ করার কোন ইচ্ছা না থাকে তাহলে ওয়ার্ড প্রেসে ফ্রিতে ব্লগ বানিয়ে আপনার স্কিল ডেবলাপ করতে পারেন। আর যদি অর্থ খরচ করার মানসিকতা থাকে তাহলে পরামর্শ হলো হোস্টিং কেনে ফেলা। এখন মাত্র ২০০০ টাকায় আপনি এক বছরের জন্য ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনতে পারেন। দেখুন http://cs-itsolution.com এ।

আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে ডোমেইন আবার কী? হ্যা, প্রশ্ন স্বাভাবিক। ডোমেইন হচ্ছে আপনার নিজের প্রছন্দের একটি ঠিকানা যেখানে আপনার সকল লেখা ও ছবি আপনি প্রকাশ করবেন। যেমন আপনি আমার সাইটে আছেন http://sylhetstore.com । এইটা আমি কিনেছি এবং এই নামে আরেকজন আর কিনতে পারবে না। বদলানোও যাবেনা।

নিজের প্রছন্দমতো ঠিকানা থাকার উপকারিতা হলো এখানে আপনার যা প্রকাশিত হবে তা সব আপনার ঠিকানা অনুযায়ী হবে। এতে সবাই আপনার ওয়েবসাইটের ঠিকানা মনে রাখতে পারবে সহজে। যেমন ফেসবুক ডট কম অথবা গুগল ডট কম। আমরা ফেসবুকে অথবা গুগলে ঢুকতে যেভাবে তাদের ঠিকানা লিখি আপনার ঠিকানাও ঠিক একই রকম লিখে যে কেও ঢুকতে পারবে।

অন্য দিকে আপনি যদি ওয়ার্ড প্রেসে অথবা ব্লগ স্পটে একটা ব্লগ বানিয়ে লিখেন তাহলে সেখানে আপনার পছন্দমতো ঠিকানা নাও পেতে পারেন। আর পেলেও আপনার ঠিকানার আগে অথবা পরে তাদের ঠিকানা লাগানো থাকবে। যেমন jobcenterbd.wordpress.com or ipostbd.blogspot.com এরকম হবে।

হোস্টিং আবার কী? হ্যা…।। হোস্টিং হল যেখানে আপনার সকল লেখা এবং ছবি সংরক্ষন করা থাকবে। আপনি চাইলে নিজেই তা করতে পারেন।  এবং তা করতে আপনার কয়েক লক্ষ টাকা লাগবে আর আপনাকে দক্ষ প্রযুক্তিবিদ রাখতে হবে তা রক্ষনাবেক্ষন করার জন্য। এই কাজটা বিভিন্ন কোম্পানি করে থাকে যেখান থেকে আপনি মাত্র ২০০০ টাকায় কিনতে পারেন। আপনি হয়তো শুনে থাকবেন ফেসবুক হাজার হাজার কোটি ডলার ব্যয় করছে ডেটা সেন্টার বানাতে অথবা গুগল ১০০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে নতুন ডেটা সেন্টার বানাতে। এগুলোই সার্ভার যেখানে হাজার হাজার কাস্টমারের লেখা ও ছবি সংরক্ষন করা হবে। অন্যান্য কাস্টমারের মতো আপনিও তাদের কাছ থেকে হোস্টিং কিনবেন। এতো গেলো ডোমেইন ও হোস্টিং এর কথা।

এগুলো নিজে মেইন্টেইন করা আপনার পক্ষে সম্বব হবেনা যদি আপনি বড় কম্পানি না হন আর আপনার দক্ষ প্রযুক্তিকরমী না থাকে। কাজেই আমাদের পরামর্শ আপনি আপনার শহরের পরিচিত হোস্টিং সেবাদান কারীর কাছ থেকে কিনে নিবেন। নিজের শহরের কারো কাছ থেকে কেনার উপকারিতা হল, যখনি আপনি কোনো সমস্যায় পড়বেন সহজে তাদের সাথে তা সমাধান করতে পারবেন। দুরের হলে অথবা বিদেশ থেকে কিনলে আপনার ২৪ ঘন্টা লেগে যাবে সমাধান করতে।

আসুন আমরা মুল আলোচনায় যাই। ওয়ার্ডপ্রেস কিভাবে ইনস্টল করবেন আর কিভাবে আপনার ওয়েবসাইট সাজাবেন। আপনার হাতে যদি ডোমেইন আর হোস্টিং কেনা থাকে তাহলে আপনি ওয়েবসাইট তৈরির প্রথম দাপ সম্পাদন করার জন্য তৈরি।

এখানে আপনাকে ধারাবাহিকভাবে কার্যপ্রণালী বর্ণনা করা হবে তাই এই অংশ মনোযোগ দিয়ে পড়বেন এবং চাইলে নোট করতে পারেন।

১. প্রথমে আপনাকে আপনার লগইন ডিটেইলস দিয়ে আপনার হোস্টিং অর্থাৎ ঠিকানায় ঢুকতে হবে। ব্রাউজারের এড্রেসবারে লিখুন www.yourdomain.com/cpanel ( yourdomain=আপনার ডোমেইন ঠিকানা) তাহলে আপনার (c panel)সি পেনেলে ঢুকার উইন্ডো ওপেন হবে। এখানে আপনার ইউজার নেইম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন। এগুলো আপনার হোস্টিং কম্পানি আপনার ইমেইলে দিয়ে দিবে যখন আপনি হোস্টিং কিনবেন।

২. লগইন করার  পর আপনি প্রাথমিক পর্যায়ে চলে আসবেন। উপর নিচে দেখুন Softaculous লিখা এপস আছে। আর হ্যা অনেক সময় অনেক হোস্টিং প্রোভাইডার এই সুযোগ দেয় না। আপনি তাদের কাছ থেকে জিজ্ঞেস করে নিবেন। তাথে ক্লিক করুন। সফটও্যাকুলাস উইন্ডো ওপেন হবে। সেখানে দেখবেন প্রথমেই ওয়ার্ড প্রেস লোগো আছে। এইটাতে ক্লিক করেন। আপনাকে কিছু তথ্য জিজ্ঞেস করবে নিচের ছবির মতো…।।

primary environment of Softaculous sript of wordpress.

৩. ওয়ার্ড প্রেস লোগোতে ক্লিক করলে আপনি নিচের পরিবেশে যাবেন।

Word press installation environment in Softaculous

০৪. আপনাকে ইনস্টল লেখা জায়গায় ক্লিক করতে হবে। তারপর আপনি নিচের পরিবেশে যাবেন। এই খানে কিছু ইম্পরটেন্ট বিষয় আছে। আপনি চাইলে আপনার সাইট কোনো সাব ডোমেইনে ইনস্টল করতে পারেন। অথবা আপনার মেইন ডোমেইনে ইন্সটল করতে পারেন। আরেকটা বিষয় এখানে আপনাকে ডোমেইন ঠিকানা কিরকম হবে তা সিলেক্ট করে দিতে বলবে। যেমন আপনি কি www সহ ডোমেইন চান , বা www ছাড়া । এখানে আপনি ক্লিক করার মাধ্যমে বাচাই করে দিতে পারেন। আরেকটা হলো আপনি কি htts ব্যবহার করবেন না শুধু http ব্যবহার করবেন। https একটু জামেলার আর আপনাকে এর জন্য আরো অর্থ খরচ করতে হবে। আপাতত আপনি শুধু http সিলেক্ট করবেন।

Domain information

০৫. উপরের ছবিতে আপনি দেখতে পাচ্ছেন http:// এইটা সেইম থাকবে। দ্বিতীয় লাইনে দেখতে পাচ্ছেন ডোমেইন নাম। আপনার ক্ষেত্রে আপনার ডোমেইন নাম আসবে। না আসলে সিলেক্ট করুন। তৃতীয় লাইনে আপনার মনে রাখতে হবে আপনি কি আপনার ডোমেইনে ইনস্টল করতে চান না কোন সাব ডিরেক্টরিতে করতে চান। আপনার এখানে মাথা ঘামানোর দরকার নেই। আপনার যখন প্রচুর এক্সারসাইজ হবে তখন আপনি বুঝতে পারবেন। যেমন অনেক সময় দেখবেন ওয়েবসাইত এড্রেসে লিখা থাকে http://mydomain.com/blog এখানে তাই লিখে দিতে হয় যে নামে আপনি আপনার ডোমেইন চালাতে চান। আপনি যেহেতু প্রথামিক পর্যায়ে আছেন তাই এ জায়গা খালি রাখুন।

০৬. উপরের ছবিতে দেখুন site name নামে লিখার জায়গা আছে । এখানে আপনার সাইটের সুন্দর একটা নাম দিন। অবশ্যই ডোমেইনের সাথে মিল রেখে দিবেন। দ্বিতীয় লাইনে আছে site description এখানে আপনি একটু লম্বা লাইনে আপনার সাইট কি সম্পর্কে তা লিখে দেন। তারপর আছে ইউজার নেইম এখানে আপনার পছন্দ মতো ইউজার নেম দেন। কঠিন দিবেন যেন হেকাররা তা ধরতে না পারে। তারপর পাস ওয়ার্ড দেন এবং আপনার ইমেইল দেন যেখানে সব ধরনের আপডেট আপনি পাবেন।

সব শেষে এখানে আপনার ইমেইম ঠিকানা আবার লিখুন । এই ইমেইলে আপনার ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড দেয়া হবে। মনোযোগ সহকারে দিবেন।ফাইনালি আপনি ইনস্টল বাটনে ক্লিক করুন। ৫ থেকে ৭ মিনিটের ভিতরে আপনার ওয়ার্ড প্রেস সাইট ইন্সটল হয়ে যাবে। আপনার ওয়েব সাইট রেডি। আপনি শুভেচ্ছা বার্তা দেখতে পারবেন।

এখন আসুন আপনার ওয়ার্ড প্রেস সাইট কিভাবে আপনার মনের মতো করে সাজাবেন। আপনার ইমেইলে সব ইনফরমেশন গেছে । চেক করুন এবং আপনার ডোমেইন mydomain.com এড্রেসবারে লিখে ব্রাউজ করুন। আপনার সাইট আপনি দেখতে পাবেন।

আপনার ইমেইলে যে লিংক আছে  অথবা আপনার সাইটের নামের শেষে এড্রেসবারে লিখুন mydomain.com/wp-admin তাহলে ওয়ার্ড প্রেস আপনাকে লগইন পেজে নিয়ে যাবে। সেখানে থেকে আপনি আপনার ডেশবোরডে যাবেন আর আপনার ওয়েবসাইট কে সাজাবেন।

উপরের ছবি হলো আপনার ওয়েবসাইটের প্রাথমিক পরিবেশ। প্রতিবার আপনি যখনি ঢুকতে চাইবেন আপনি এখনে আসবেন এবং ইউজার নেম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করবেন। উপরে ছবির ন্যায় পর্দা আসবে এবং এখানে আপনাকে আপনার ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করতে হবে।

এই হলো সাইটের পরিবেশ যাকে আমরা বা সবাই ডেশবোরড বলে থাকি। । আশা করি আপনার এখানে আসা পর্যন্ত কোণো অসুবিধা হয়নি। যদি কোন অসুবিধা হয় তাহলে আপনি আবার প্রথম থেকে শুরু করতে পারেন।

চলুন আপনাদের কে ওয়ার্ড প্রেসের ডেশবোরড পরিচয় করিয়ে দেই।

১. সবচেয়ে ডানে উপরে আছে এডমিনিষ্ট্রেটর প্রোফাইল যেখানে লগইন করার পর আপনার লগ আউট করতে ক্লিক করতে হবে।

২. মাঝে আপনি যে আগমনি বার্তা দেখছেন এটা সবাই দেখতে পায় যারা প্রথম ওয়ার্ড প্রেস ইনস্টল করে। তাই ডিসমিস লেখায় ক্লিক করুন এবং স্ক্রিন পরিষ্কার করুন।

৩. বাম দিক থেকে প্রথমেই পাবেন আপনি ডেশবোরড। এখানে ক্লিক করার মাধ্যমে আপনি প্রত্যেকবার এই এই পরিবেশে ফিরে আসবেন।

এখানে আছে,

  •  (a) Home

  •  (b) Update

৪. তারপর পাবেন পোস্ট যেখান থেকে আপনি নতুন পোস্ট লিখবেন অথবা পুরোনো কোনো পোস্ট ডিলেট করবেন অথবা আগের কোনো পোস্ট আপনি পুনরায় এডিট করবেন। উপরের ছবিতে আপনি জেটপ্যাক নামে একটি মেনু দেখতে পাচ্ছেন । ইহা একটি প্লাগ ইন যা প্রত্যেক  ওয়ার্ড প্রেস ব্যবহার কারী ইনস্টল করে থাকে। আমরা পরবর্তীতে দেখে নেব কিভাবে প্লাগ ইন ইনস্টল করতে হয়। এখানে আছে…।।

  • All Post

  • Add New

  • Categories

  • Tag

৫. তারপর আছে মিডিয়া । এখানে আপনার সকল আপলোড করা ছবি ,ভিডিও দেখতে পাবেন। ডিলিট করতে পারবেন অথবা এডিট করতে পারবেন। এখানে আছে…।।

  • Library

  • Add New

৬. তারপর আছে পেজ ( আপনার ডেশবোরডে) এখানে আছে দোকান এইটাও একটি প্লাগ ইন যা ই কমারসের কাজে ব্যবহার করা হয়।পেজ হচ্ছে আপনার সাইটের ইম্পরটেন্ট একটা জিনিস । আপনি পেজ তৈরি করে আপনার প্রছন্দমতো নাম দিতে পারেন এবং প্রয়োজনীয় তথ্য সংযোজিত করতে পারেন। আপনানি পেজ কিভাবে বানাতে হয় নিচে জানতে পারবেন আশা করি। এখানে আছে…।।

  • All Pages

  • Add New Page

৭. তারপর পাবেন কমেন্ট মেনু । এখানে নাই কারন আমি কমেন্ট ডিসকাস দ্বারা প্রতিস্থাপন করেছি। তাই কমেন্ট এখন ডিসকাস মেনুর অধীন। ডিস্কাস একটি জনপ্রিইয় কমেন্ট প্লাগিন যা কমেন্ট কারীকে বিভিন্ন ইউজার আইডি দিয়ে লগইন করতে সহযগিতা করে। এখানে আছে…।।

  • all comment

  • delete comment

  • moderate comment

৮. তারপর আছে এপেরিয়ান্স। এই মেনু খুবই গুরুত্বপূর্ণ কেননা এখানে আপনি আপনার ও্য্ববসাইত কাস্টমাইজ করার সব কিছু পাবেন। আমরা পরবর্তীতে ওয়ার্ড প্রেস কাস্টমাইজ করার পদ্ধতি জেনে নেব।

  • Theme

  • Customize

  • Widget

  • Menu

  • Header

  • Background

  • Install Plugin

  • Editor

১০. তারপর আছে প্লাগইন। আপনি যত রকম প্লাগ ইন ইনস্টল করবেন এখানে তা দেখতে পাবেন। এছাড়াও এখান থেকেই আপনি নতুন প্লাগইন ইনস্টল করবেন। আপনার ওয়েবসাইট সুন্দর করে সাজাতে প্লাগইন অত্যাবশ্যকিয় উপাদান। প্লাগইন অনেকটা অলংকারের মতো। যত অলংকার পরাবেন আপনার সাইট ততো সুন্দর হবে।

  • Installed Plugin

  • Add new

  • Editor

১১. তারপর ইউজার মেনু। ইউজার মেনূ থেকে আপনি নিজের প্রোফাইল সহ অন্য সকল রেজিস্টার করা ইউজারদের দেখতে পারবেন। চাইলে যে কাউকে ডিলিট অথবা তার পদবি বদলাতে পারবেন।

  • All users

  • Add new

  • Your profile

১২. তারপর টুলস । এই মেনু তুলনামুলকভাবে কিছুটা কম গুরুত্বপূর্ণ। আবার অনেকের কাছে বেশি।  এখান থেকে আপনি আপনার সাইটের সব কিছু এক্সপোর্ট করতে পারবেন মানে অন্য সাইটে নিতে পারবেন। আবার আগে থেকে সাজানো আছে এমন সাইটের সকল তথ্য এনে টুলস এর ইম্পোরট দিয়ে আপলোড করতে পারবেন।

  • Available tools

  • Import

  • Export

১৩. সবশেষে সেটিং। সেটিং আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন। সেটিং দিয়েই দুনিয়ার সব কিছু নিজের মতো করে সাজিয়ে নেয়া যায়। তেমনি ওয়ার্ড প্রেসে সেটিং দিয়ে আপনি আপনার সাইট সাজাবেন। এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সেটিং অপশনে আপনি কমেন্টকারী নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। আপনার সাইট কিভাবে ইউজারের সামনে প্রদর্শিত  হবে তা এখানে নির্ধারণ করে দিবেন। তারপর আপনার সাইটে কত টি লিখা একবারে দেখাতে চান। আপনার লিখা কি হোম্ পেজে দেখাতে চান নাকি ব্লগ পেজে দেখাতে চান। এখান থেকে আপনাকে নির্ধারণ করে নিতে হবে।

  • General

  • Writing

  • Reading

  • Discussion

  • Media

  • Permalink

  • And sharing if Jetpack active

প্রথমেই চলুন একটি পেজ তৈরি করি কেননা আপনার সম্পর্কে আগে কিছু লিখে নেন যাতে ভিজিটর পড়ে বুঝতে পারে আপনার উদ্দেশ্য। পেজ মেনু থেকে এড নিউ মেনুতে ক্লিক করুন। তাহলে নতুন একটি মেনু আসবে। আপনার প্রছন্দমতো নাম দিন যেমন…about me OR about us. বক্সের মধ্যে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য লিখুন যেরকম আপনি ফেসবুকে লিখেন। লিখাকে বড় ছোট সাজানোর ফাংশন আপনি দেখতে পাবেন। আপনি যদি মাইক্রোসফট ওয়ার্ডে লিখে থাকেন তাহলে অব্যশই এখানে আপনি অনায়াশে লিখতে পারবেন। লিখা শেষ হলে ডান দিকের  PUBLISH পাবলিশ বাটনে ক্লিক করুন। আপনার একটি পেজ তৈরি হয়ে গেল। এইভাবে আপনি যত খুশি পেজ বানাতে পারেন। মনে রাখা ভালো অপ্রয়োজনীয় পেজ তৈরি করা উতিচ হবেনা কেননা বেশি পেজ হলে আপনার সাইট লোড হতে সময় বেশি নিবে। আপনি অতিরিক্ত পেজ ডিলিট বাটনে ক্লিক করে বাদ দিয়ে দিতে পারেন।

এবার আসুন আপনার সাইটের জন্য একটি পোস্ট তৈরি করি। পোস্ট মেনু থেকে এড নিউ পোস্ট সাব মেনুতে ক্লিক করুন। আপনার পর্দায় পোস্ট লিখার পরিবেশ আসবে। আপনার পোষ্টের একটি শিরোনাম লিখুন । মনে রাখবেন সুন্দর শিরোনাম মানুষকে বেশি আকর্ষণ করে।  প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে আপনার পোষ্ট সাজান। পোস্টের মাজে ছবি সংযোজন করতে আপনার ডায়লগ বক্সের বামে দেখবেন Add Media নামে বাটন আছে। এখানে ক্লিক করুন এবং ফেসবুকের মতো ছবি আপলোড করুন। আপনার ছবি লিখার মাঝখানে চলে আসবে। মনে রাখবেন আপনার লিখার কারসর যেখানে থাকবে ছবি সেখানেই আপলোড হবে। তাই যেখানে ছবি আপলোড করতে চান কারসর সেখানে নিয়ে যান আর আপলোড করুন।

ডান দিকে PUBLISH এর নিচে দেখবেন ক্যাটাগরি বাচাই করার অপশন আছে। আগে থেকে ক্যটেগরি থাকলে আপনি তা দেখতে পাবেন । না থাকলে নতুন ক্যটেগরি বানিয়ে নেন। যদি না পারেন রেখে দেন ওয়ার্ড প্রেস আপনার পোস্ট কে আন কেটেগরি হিসেবে চিহ্নিত করে নিবে। তারপর আছে ট্যগ। এখানে আপনি ফেসবুকে যেভাবে # ট্যাগ দিয়ে পোস্ট দিতেন সেরকম শুধু এখানে আপনি # চিহ্ন বাদ দিবেন । এর পরিবর্তে আপনি কমা ব্যবহার করবেন। তার নীচে দেখবেন আছে ADD FEATURE IMAGE  এখানে ক্লিক করে আপনি একটা ইমেজ ফিচার হিসেবে প্রকাশ করতে পারেন। এইটা নির্ভর করে আপনার থিম কি তা সাপোর্ট দেয় তার উপর। আশার কথা হলো অধিকাংশ থিম ফিচার ইমেজ সাপোর্ট করে । তাই সহজেই আপনি দেখতে পাবেন এবং একটি সুন্দর ছবি এখানে আপলোড দেন।

এবার আপনি আপনার পোস্ট প্রকাশ করতে পারেন। PUBLISH বাটনে ক্লিক করার সাথে সাথে আপনার পোস্ট সবার জন্য উন্মোক্ত হবে এবং যে কেও তা পড়তে পারবে। আপনার যদি আরো তথ্য সংযোজন করার ইচ্ছা হয় অথবা লিখা কে একটু সাজাতে চান তাহলে এডিট বাটনে ক্লিক করে আপনার প্রকাশিত পোস্ট এডিট করতে পারেন। আশা করি আপনার নতুন পোস্ট লিখতে আর কোণো অসুবিধা হবেনা। কোনো পোস্ট যদি ডিলিট করতে চান তাহলে ডিলিট বাটন ক্লিক করে আপনি তা করতে পারেন। অবশ্য আপনার জন্য সুখবর আপনার ডিলিট করা পোস্ট একেবারে ডিলিট হবেনা। তা ট্রাস ফোল্ডারে জমা হবে। ওয়ার্ড প্রেস এই অপশন রেখেছে কারন আপনি হয়তো ভুলে কোনো পোস্ট ডিলিট করে দিতে পারেন। সেটা যেন আবার ফিরে পান তার জন্য এই অপশন।

আজ এ পর্যন্ত …পড়তে পড়তে আপনার হয়তো বিরক্ত চলে এসেছে। অন্য পোস্টে আমরা অন্যান্য বিষয় আলোচনা করবো ইনশাআল্লাহ। আপনি আমাদের ফেসবুকে , ইনস্টাগ্রামে অথবা টুইটারে ফলো করতে পারেন। আমাদের পোস্ট শেয়ার করবেন আর আমাদের কে জানাবেন আপনার ওয়েবসাইট কেমন হলো।

ধন্যবাদ, সিলেট স্টোর ডট কম।

You can follow us on facebook , instagram , Twitter and Youtube. Share our post to your friends and give your feedback about our writing. If you find any difficulties, please drop us a message and we will back to you as soon as possible.

Sylhetstore.com is an online e-commerce platform based in Sylhet. its aim is to spread e-commerce sector in every corner of our country and creates new opportunity to our young generation. If you have interest and have quality products to sell just register to our site and start selling right away.

Comments

comments